আম্পায়ারিং নিয়ে মাশরাফির ক্ষোভ, ছাড়ছেন না সুপার এইটের আশা


দক্ষিণ আফ্রিকার মতো শক্তিশালী বোলিং লাইন আপের বিপক্ষে নিউ ইয়র্কের কঠিন পিচেও রান তাড়ায় নেমে জয়ের খুব কাছে চলে গিয়েছিল বাংলাদেশ। তবে আম্পায়ারের দুটি সিদ্ধান্ত ম্যাচ থেকে ছিটকে দেয় টাইগারদের। যা নিয়ে দেশ-বিদেশের অনেক তারকা ক্রিকেটারই সমালোচনা করেছেন। সে তালিকায় যোগ দিয়েছেন টাইগারদের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজাও।

প্রোটিয়াদের বিপক্ষে জিতলে সুপার এইট অনেকটা নিশ্চিত হয়ে যেতে লাল সবুজের প্রতিনিধিদের। অবশ্য এখনো আশা ছাড়ছেন না মাশরাফী।

সামাজিক মাধ্যমে তিনি লেখেন, ‘বাজে আম্পায়ারিং নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই, তবে আমরাও পুওর অ্যাপ্লিকেশন করেছি। আশা ছাড়ছি না, ইনশা-আল্লাহ সেরা আটে যাব।’

শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে নিজেদের  বিশ্বকাপ মিশন শুরু করেছিল বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ম্যাচে সোমবার (১০ জুন) প্রোটিয়াদের প্রায় হারিয়েই দিয়েছিল। দারুণ বোলিংয়ে প্রতিপক্ষকে মাত্র ১১৩ রানে আটকে দিয়েছিল তাসকিন-তানজিমরা। রান তাড়ায় নেমে শুরুতে ভুগলেও তাওহীদ হৃদয় ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ব্যাটে জয়ের কাছে পৌঁছে গিয়েছিল টাইগাররা।

কিন্তু আম্পায়ারের ভুল লেগ বিফোরের সিদ্ধান্তে লেগ বাই ফোর বাদ যাওয়া আর আম্পায়ার্স কলে হৃদয়ের আউটে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় বাংলাদেশ। যদিও শেষ ওভারের পঞ্চম বলে সীমানার কাছে এইডেন মারক্রামের হাতে মাহমুদউল্লাহ ধরা না পড়লে জিততে পারতো বাংলাদেশ। জয়ের সুবর্ণ সুযোগ পেয়ে তা হাতছাড়া করা হতাশার। তবে মাশরাফীর, পরামর্শ মস্তিষ্ক থেকে এ ম্যাচ ঝেড়ে সামনে চোখ রাখার, যেন পরের দুই মাচের ফলটা পক্ষে আসে।

মাশরাফী বলেন, ‘দারুণ সুযোগ হাতছাড়া হলো, যার ফলে আরও দুইটা প্রেশারের ম্যাচ খেলতে হবে। তাই এই ম্যাচকে যত দ্রুত ব্রেইন থেকে ডিলিট করা যায়, ততই ভালো হবে সামনের দুইটা ম্যাচের জন্য।’

গ্রুপ পর্বের শেষ দুটি ম্যাচে ১৩ জুন নেদারল্যান্ডস আর ১৭ জুন নেপালের মোকাবিলা করবে বাংলাদেশ। এ দুই ম্যাচ জিততে পারলে সুপার এইটে পা রাখার সুযোগ পাবে শান্তরা।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *